Image Source : Google

জাভেদ হাবিবকে আমরা সবাই চিনি। হেয়ার স্টাইলিং-এর দুনিয়ায় তিনিই সবার শাহরুখ খান৷ কলকাতা-সহ দেশের ৯২টি শহরে সব মিলিয়ে মোট ৪৮৪টি সালোঁ আউটলেট রয়েছে তাঁর সংস্থার৷ এ শহরে সেভাবে কাজ না করলেও কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য মাঝেমধ্যেই কলকাতা এসে ঘুরে যান তিনি৷সম্প্রতি ‘৯৪.৩ রেডিও ওয়ান ’এবং ‘ফেস’-এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ১০ জন বাছাই করা ‘নন্দিনী-র হেয়ার স্টাইলিং করলেন তিনি নিজের হাতেই ৷

মাত্র আধঘণ্টার মধ্যেই তিনি প্রতিযোগিদের ভোল যেভাবে পাল্টে ফেললেন, তা নিজের চোখে না দেখলে আপনি সত্যিই বিশ্বাস করতে পারবেন না৷ চুলের যত্ন নেওয়ার জন্য সবথেকে সহজ উপায় কী? চুল নিয়ে অনেক সাধারণ বিষয়ই এদেশের মানুষের অজানা৷ ‘এক্সক্লুসিভ’ এক সাক্ষাৎকারে সে সমস্ত কথাই জানালেন হেয়ার স্টাইলিস্ট জাভেদ হাবিব৷

১) বেশ কয়েকমাস পর আবার কলকাতায় এলেন আপনি?এবারের এই সফর কী কোনও বিশেষ উদ্দেশ্যে আছে আপনার ?

জাভেদ হাবিব: আমি এর মধ্যে বেশ কয়েকবারই কলকাতা ঘুরে গেলাম৷ আবার হয়তো কিছুদিন পরেই আসব৷ কলকাতার একটি রেডিও চ্যানেলের সঙ্গে একটি কন্টেস্টে আমাদের ‘টাই-আপ’ রয়েছে৷ প্রতিযোগীরা চাইছিলেন আমার হাতে হেয়ার কাটিং এবং স্টাইলিং করতে৷ সেই উদ্দেশ্যেই এইবার এই শহরে এসেছি আমি৷ কলকাতায় আমার সংস্থার অনেক আউটলেট রয়েছে৷ এ শহরে আমি কাজ না করলেও আমার কর্মীদের প্রশিক্ষণ দিতে এবং ওদের খোঁজখবর নিতে সময় পেলেই এখানে এসে আমি ঘুরে যাই৷ কর্মীদের চুল কাঁটার কাজে তাঁদের ‘প্যাশন’, ‘রোম্যান্স’টা যাতে শেষ না হয়ে যায় আমি সেটাই সবসময় সেটাই নজরে রাখি৷

২) হেয়ার কাটিং-এর ট্রেনিং-এর বিষয়টি যদি একটু বিষদে বলেন৷ এবং এই হেয়ার স্টাইলিং শিল্পকে কীভাবে নিজেদের প্রফেশন হিসেবে আজকালকার ছেলেমেয়েরা নিচ্ছে বলে আপনি মনে করছেন?

জাভেদ হাবিব: আমি মনে করি একজন ভাল হেয়ার স্টাইলিস্টের কাজ একজন ডাক্তারের মতোই৷ একটা ভালো হেয়ার কাটিং একজন মানুষের পুরো পারসোন্যালিটিই বদলে দিতে পারে৷ চুল কাটার শিল্প এমনই যে কোনও মানুষের বয়স এক নিমেষে অনেকটাই কমিয়ে দিতে পারে৷ এবং চুল কাটার পর একজনের ‘লুক’ আরও বেশি অনেক ফ্রেশ লাগতে পারে৷ হেয়ার কাটিং-এর শিল্পকে এখন আর নাপিতের কাজ বলা যায় না৷ এর যথাযথ প্রশিক্ষণের জন্য অবশ্যই আপনাকে যেতে হবে একটা ভালো ট্রেনিং স্কুল অথবা পাঠশালায়৷

মুম্বই-দিল্লি থেকে হায়দরাবাদ-কলকাতা সব জায়গাতেই আমি এই কাজের উদ্দেশ্যেই ঘুরে বেড়াই৷ এই শহরেও আমার অনেক ট্রেনিং ইনস্টিটিউট আছে৷ কলকাতায় আমার মূলত পাঁচ ধরনের কাজকর্ম ( জাভেদ হাবিব হেয়ার অ্যান্ড বিউটি, হেয়ার এক্সপ্রেসো, হেয়ার অ্যাকাডেমি, বেভেলস এবং হেয়ার যোগা) ৷ এছাড়াও খুব তাড়াতাড়ি ‘জাভেদ আলি বিউটি পার্লার’ এবং ‘জাভেদ হাবিব বার্বার শপ’-এর আউটলেট এশহরে খুলতে চলেছি আমরা৷

Image Source : Google

৩) ভারতের আবহাওয়ায় চুলের স্বাস্থ্য এবং কোয়ালিটি বজায় রাখা নিয়ে বেশিরভাগ মানুষই অনেক সময় সমস্যায় পড়েন৷ এর থেকে বাঁচার সহজ উপায় কী আছে বলে আপনার মনে হয় ?

জাভেদ হাবিব: আমার মনে হয়, ‘দিজ কান্ট্রি ইজ মিসিং দ্য হেয়ার এডুকেশন’৷ চুলের জন্য শুধুমাত্র বাজারের বিভিন্ন প্রোডাক্ট কিনতে বেশি আগ্রহী এদেশের মানুষ৷ সহজ উপায়ে যদি চুলের যত্ন নিতে হয়, তাহলে আমি বলব প্রতিদিন শ্যাম্পু করাটা বাধ্যতামূলক৷ আরও ভালো হয়, যদি রোজ শ্যাম্পু করার দশ মিনিট আগে মাথায় তেল লাগানো যায়৷ আর সেই তেল অবশ্যই সর্ষের তেল হতে হবে৷ কারণ ভারতের ক্লাইমেটে সর্ষের তেল চুলের জন্য সবচেয়ে উপকারি৷

আপনি নিশ্চয় আমাকে এখন জিজ্ঞেস করবেন, শ্যাম্পুতে তো কেমিক্যালস রয়েছে৷ আমি বলব কেমিক্যাল কোন জিনিসে নেই? সাবান, টুথপেস্ট সবকিছুতেই৷ তাহলে ওগুলো যদি রোজ আমরা ব্যবহার করতে পারি, তাহলে শ্যাম্পুই বা ব্যবহার করতে পারব না কেন?

৪) শ্যাম্পুর পর কন্ডিশনার লাগানোটা কী তেলের কোনও বিকল্প হতে পারে, আপনার কি মনে হয় ?

জাভেদ হাবিব: দেখুন কন্ডিশনার জিনিসটা প্রত্যেকের চুলের টেক্সচারের উপর নির্ভর করে৷ এক এক ধরনের চুলের ক্ষেত্রে এক এক ধরনের কন্ডিশনার দরকার হয় ৷ তাই সবচেয়ে ভালো হয়, রোজ তেল এবং শ্যাম্পু লাগানো৷ তাহলেই অনেকটাই সমস্যার সমাধান হতে পারে৷ কলকাতা বা পূর্ব ভারতে যেমন বড় এবং ‘সিম্পল’ চুলের ট্রেন্ড৷ কিন্তু এখানকার আবহাওয়ায় আর্দ্রতার পরিমাণ অনেক বেশি৷ তাই চুলে এবং মেখে তেলচিটে ভাবটাও বেশি থাকে৷ এখানে তো প্রতিদিন শ্যাম্পু করাটা খুবই দরকার৷

The post চুল ভালো রাখার জন্য কি টিপস দিলেন হেয়ার স্টাইলিস্ট ‘জাভেদ হাবিব’?জানলে অবাক হবেন appeared first on Moner Diary.


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *