সকালে সেজেগুজে রেডি হয়ে বের হচ্ছেন, ফিরছেন সন্ধ্যেবেলা। সারাদিনে অফিসের মিটিং, বন্ধুদের সাথে ক্যাফেতে আড্ডা এবং সবশেষে প্রিয় মানুষের সাথে ডেট এই সবেতেই আপনার এনার্জি আপনার সাথে পাল্লা দিলেও, পাল্লা দেয়না আপনার লিপস্টিক। যত ভালো কোম্পানিরই হোক না কেন, কয়েক ঘন্টা বাদে গল্পটা একই। এবার থেকে এমনটা আর হবে না। সারাদিনে আপনার কনফিডেন্সকে এগিয়ে রাখতে অনুঘটকের কাজ করবে আপনার উজ্জ্বল দুই ঠোঁট। এটা নির্ভর করছে আপনার হাতেই। কীভাবে?

দেখুন সবার আগে জানতে হবে যে, লিপস্টিক উঠে যাওয়ার প্রধান কারণ হল ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়া। ঠোঁট শুকিয়ে গেলে লিপস্টিক তখন আর ঠোঁটে বসে না। লিপস্টিক ঠিক ভাবে ঠোঁটে বসার জন্য, আগে ঠোঁটকে মসৃণ করতে হয়। অমসৃণ ফাটা ঠোঁটে লিপস্টিক লাগালে ঠোঁট থেকে তো লিপস্টিক উঠবেই। এটা রোধ করা সম্ভব নয় কোন ভাবেই।এর হাত থেকে বাঁচতে রোজ রাতে শোবার আগে রোজ ঠোঁটে লিপবাম লাগান। তা হলে দেখবেন সারাদিন ঠোঁট নরম থাকছে। এ ক্ষেত্রে একটু ভালো কোম্পানির লিপবাম ব্যবহার করুন। যাতে ভিটামিন-সি, ই, শিয়া বাটার দেওয়া আছে। রোদে বেরোনোর আগে এসপিএফ যুক্ত লিপবাম দিয়ে বাইরে বেরোন। কারণ রোদ লেগেও ঠোঁটের আর্দ্রতা নষ্ট হয়ে যায়।

এ ছাড়া যেটা করবেন, যখন দাঁত মাজবেন হালকা করে ব্রাশ দিয়ে ঠোঁটের মধ্যে ঘষুন। দেখবেন ঠোঁটের মধ্যে থাকা মৃত কোষগুলি উঠে যাবে। আর লিপস্টিকও অনেকক্ষণ থাকবে।

Image Source : Google

উপরিউক্ত বিষয়গুলি লক্ষ্য রাখার সাথে সাথে লিপস্টিকের উপর লিপ গ্লস যদি লাগান তা হলে লিপস্টিক বেশিক্ষণ থাকে। সাথে রাখুন ব্লটিং পেপার। প্রথমে একবার লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। এ বার লিপস্টিকের ওপর ব্লটিং পেপার চেপে ধরুন যাতে ঠোঁটের অতিরিক্ত তেল বেরিয়ে আসে। এর পর ফের একবার লিপস্টিক দিন। ঘন করে লাগান বা লিপস্টিক লাগানোর আগে, ব্লটিং পেপার চেপে ঠোঁটের অতিরিক্ত তেল বার করে নিন। এ বার এক কোট লাগান। লাগানোর পর, ঠোঁটের উপর টিস্যু পেপার চেপে ধরুন। টিস্যু পেপারের উপর দিয়ে ফেস পাউডার চেপে চেপে লাগান। এতে ঠোঁটে একটা পাউডারি ম্যাট ফিনিশও আসবে। আর লিপস্টিক অনেকক্ষণ থাকবেও। আরো গ্লসি লুক চাইলে এর ওপর আরেক কোট লাগিয়ে নিন।

The post আপনার সাথে অন থাকুক আপনার ঠোঁট ! কিভাবে ? জানতে ক্লিক করুন appeared first on Moner Diary.


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *