রোজকার সাজগোজের লিস্টে লিপস্টিক একটি খুবই কমন উপকরন। খুব চটপট নিজের লুকস বদলে ফেলতে লিপস্টিকের জুড়ি মেলা ভার। তাই টেবিল, ব্যাগ থেকে শুরু করে সবকিছুতেই তার অবাধ যাতায়াত। এখন বাচ্ছারাও লিপস্টিক ব্যবহার করে দিব্বি। তবে বাচ্ছাদের আগে বড়দের বিষয়ে বলা উচিত। তারাই অনেকে সঠিক ব্যবহার জানেনা।

প্রথমে ঠোঁটে প্রথমে পাউডার লাগিয়ে নিন। তারপর লিপস্টিক লাগান। এরফলে বেশিক্ষণ লিপস্টিক থাকবে।আগে প্রথমে লিপলাইনার বেছে নিন। যে রঙের লিপস্টিক লাগাবেন তার চেয়ে একশেড গাঢ় রঙের লিপলাইনার বেছে নিন। লিপলাইন দিয়ে ঠোঁট আউটলাইন করুন। ঠোঁটের সেন্টার পয়েন্ট থেকে আউটার কর্নারের দিকে লিপলাইনার লাগান। নিচের ঠোঁটে এমনভাবে লিপলাইনার লাগান যাতে ওপরের ঠোঁটের লিপলাইনকে স্পর্শ করে। লিপ ব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগাতে পারেন। ঠোঁটের শেপ ভালো বোঝা যাবে। সেন্টার থেকে আউটওয়ার্ড স্ট্রোকে লিপ ব্রাশ লাগান। অতিরিক্ত লিপস্টিক টিস্যুপেপার দিয়ে মুছে নিন। লিপস্টিক না লাগিয়ে শুধু লিপগ্লস লাগাতে চাইলে লিপ ব্রাশ দিয়েই লাগান।

কিরকম শেড আপনাকে মানাবে?

গায়ের রঙ চাপা হলে পিংক বা পিচের মতো হালকা শেডের লিপস্টিক না লাগানোই ভালো। ফ্লুরোসেন্ট কালারও ব্যবহার করবেন না।আপনার গায়ের রঙে হলদে ভাব থাকলে অরেঞ্জ শেডের লিপস্টিক লাগাবেন না। ব্রাউন, কপার, ব্রোঞ্জ, কোরাল, ব্রিক রেডের মতো রঙ বেছে নিন। এগুলো সব ধরনের ত্বকের উপযোগী। যদি রাতে কোন অনুষ্ঠান থাকে তার জন্য ডার্ক রেড ব্যবহার করুন। তবে খুব ডার্ক কালার যেমন ডার্ক মেরুন ব্যবহার করবেন না। ডার্ক রেড, কোরাল, প্লাম, ওয়াইন রেডের মতো রঙ ব্যবহার করতে পারেন।

The post মেয়েরা লিপস্টিক লাগানোর আগে এই তথ্যটি অবশ্যই জেনে নিন, চমকে যাবেন কথা দিলাম appeared first on Moner Diary.


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *