নিজের জীবনসঙ্গিনী সুন্দরী হবে সব ছেলেই এমনটাই চায়। শুধু ছেলে কেন? মেয়েদের ক্ষেত্রেও চাওয়াটা একই। নিজের জীবনসঙ্গী সুন্দর হবে এমন চাওয়াটাই ভীষণভাবে স্বাভাবিক এবং এতে কোন ভুলও নেই। কিন্তু অনেক মেয়েই এমন ভাবেন যে ছেলেরা হয়তো শুধু মেয়েদের রূপের পেছনেই ছোটে। বাকি কোনকিছুই ছেলেদের কাছে তেমন গুরুত্ব পায়না। কিছু ক্ষেত্রে হয়তো এই বক্তব্যের যথার্থতা আছে কিন্তু, সব ক্ষেত্রে এটা ঠিক নয়।বোঝদার ছেলেরা একজন মেয়ের শুধু রূপ দেখেই আকৃষ্ট হননা। তারা আরো কিছু বৈশিষ্ট্য খোঁজে একটা মেয়ের মধ্যে।

দেখুন অল্পবয়সে অর্থাৎ, ১৫ থেকে ২৫ বছর বয়স পর্যন্ত ছেলেরা শুধু সুন্দরী মেয়েই খোঁজে। কারণ এই বয়সে ছেলেরা অপরিণত থাকে এবং জানে না তারা কী চায়।

কিন্তু যখনই একটা ছেলে বড় হয় এবং মানসিক ভাবে তার মধ্যে।কিছু উন্নতি ঘটে তখন অর্থাৎ, ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়সের মধ্যে ছেলেরা এমন মেয়ে খোঁজে, যার মানসিক স্থিতিশীলতা রয়েছে। কারণে এর আগে তারা এমন সুন্দরী মেয়েদের প্রেমে পড়েছিল যাদের আবেগ অনেক দ্রুত শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে বিচ্ছেদের মতো ঘটনা ঘটেছিল।

৩০ বছর বয়সে ছেলেরা অনুভব করে সৌন্দর্যই সবকিছু না। তখন তারা এমন জীবনসঙ্গী খোঁজে যার যত্নশীল আচরণ, যোগ্যতা এবং রসবোধ রয়েছে।

৩০ বছরের পর যেসব ছেলে অবিবাহিত থাকেন, তাঁদের ভাগ্যবান বলাই যায়। কারণ তাঁরা তখন বুঝতে শেখেন সৌন্দর্য জীবনে ততটা গুরুত্বপূর্ণ না। আর জীবনসঙ্গী হওয়ার জন্য ভালো মনমানসিকতার প্রয়োজন, বিশ্বসুন্দরীর প্রয়োজন নেই।

Image Source : Google

৩৫ বছর পর যদি কোনো ছেলে বিয়ে করেন, তখন তিনি বুদ্ধিমান মেয়ে খোঁজেন। কারণ সংসার ঠিকঠাক রাখতে চাইলে এর কোনো বিকল্প নেই।

একটা বয়সের পর ছেলেরা বুঝতে পারেন সমমনা সঙ্গী জীবনের অনেক সুন্দর একটা উপহার। কারণ চলার পথে এই মানুষটি আপনার সহযোগিতার জন্য সব সময় পাশে থাকবে।

আজকাল ছেলেরা খুব ভালোভাবেই অনুভব করে যে, একজন সঙ্গীর সহযোগিতা ছাড়া জীবন অনেক দুর্বিষহ হয়ে উঠতে পারে। তাই অযোগ্য ও অদক্ষ সঙ্গী বাছাই করা বোকামি ছাড়া আর কিছুই না। ছেলেরা যখন বুঝতে পারে, সৌন্দর্য সবকিছু না, তখনই সে জীবনে যোগ্য সঙ্গী খুঁজে পায়।

The post শুধু সুন্দরী মেয়েদের পেছনেই ঘোরেনা ছেলেরা ; ঘটনা জানলে চমকে যাবেন appeared first on Moner Diary.

Categories: Others

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *