SEO বা Search Engine Optimization হলো এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটকে সমস্ত সার্চ ইঞ্জিনের (যেমনঃ Google, Bing, Yahoo, Yandex etc.) সার্চ রেজাল্টের প্রথম পাতায়, প্রথম স্থানে আনতে পারি। বর্তমান প্রতিযোগিতার বাজারে সবাই চায় নিজ নিজ সাইটকে সার্চ রেজাল্টের প্রথম পাতায় ও প্রথম স্থানে রাখতে। যাতে বেশি বেশি ভিজিট পাওয়া যাই বা বেশি বেশি বিক্রি হয়। আজকের পোস্টে আমরা বিনা খরচে SEO কিভাবে করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করব। জানব কিভাবে বিনা খরচে নিজে নিজেই SEO করা যাই। তো চলুন শুরু করা যাক।

আমরা যখনই গুগলে কিছু সার্চ করি সার্চ রেজাল্টস পেজের উপরের দিকে আমরা কিছু বিজ্ঞাপন দেখতে পাই। আমরা যে বিষয়ে গুগল সার্চ করি সেই বিষয় সম্পর্কিত কিছু বিজ্ঞাপন গুগল আমাদের দেখায়। প্রায় ৩০% সময় আমরা এই বিজ্ঞাপন গুলিতে ক্লিক করি। এবং প্রায় ৭০% এরও বেশি সময় আমরা সার্চ রেজাল্টস এর ওয়েবসাইট তালিকা থেকে পছন্দমত একটা ওয়েবসাইটে ক্লিক করি।

তাহলে আপনি আপনার সাইটকে কোন যায়গায় দেখতে চান? ৩০% ক্লিক পাওয়া বিজ্ঞাপন গুলির মধ্যে? যেখানে থাকতে হলে অবশ্যই আপনাকে গুগলে আপনার সাইটের বিজ্ঞাপন দিতে হবে, যার জন্য অর্থের প্রয়োজন। নাকি ৭০% ক্লিক পাওয়া সার্চ রেজাল্টস এর প্রথম পাতার ওয়েবসাইট তালিকার মধ্যে? যেখানে রাখতে হলে অর্থের কোন প্রয়োজন নেই। কিন্ত হ্যাঁ, তার জন্য আপনার সাইট কে অবশ্যই গুগলে র‍্যাঙ্ক করাতে হবে। যেটা খুবই সহজ মনে করলে হয়ত ভুল হবে। যাইহোক, চিন্তার কোন কারন নেই। কেননা আজ আমি আপনাদের শেখাব কোনরকম অর্থ ছাড়াই নিজেই SEO করে কিভাবে নিজের সাইটকে গুগলে র‍্যাঙ্ক করানো যায়।

 

 

যেভাবে বিনা খরচে SEO করবেন

আপনার ওয়েবসাইটের সাথে একটি ব্লগ থাকা খুবই দরকার। যদি আপনার সাইটের কোন ব্লগ না থাকে তাহলে এখুনি wordprss.com বা WordPress.org এ গিয়ে একটি ব্লগ বানাতে পারেন। ধরে নেওয়া যাক আপনার সাইটের ব্লগ আছে, বা আপনি নতুন ব্লগ বানিয়েছেন। এখন কোন ওয়েবসাইটের SEO করার জন্য সর্বপ্রথম যেটা করা দরকার সেটা হল Roundup Post শুরু করা। আপনার বিষয়ের উপর যে বিশেষজ্ঞরা আছেন তাদের সাক্ষাৎকার নিন।

ধরে নিলাম আমার বিষয়- Marketing. মানে আমি মার্কেটিঙের উপর এস.ই.ও. করতে চাইছি। তাহলে আমি গুগলে সার্চ করব “top marketers”, “top marketing, “top marketing influencers”, “top SEOs” ইত্যাদি। এবং এগুলোর একটা লিস্ট/তালিকা বানাব। ইন্টারনেটে অসংখ্য ব্লগ রয়েছে, কিন্তু আমি শুধুমাত্র মার্কেটিঙের ব্লগ গুলিতে যাব এবং তাদের সাথে যোগাযোগ করব। বলব-

হ্যালো,
আমি মোঃ হোসাইন রেজা। আমি আপনার কাজে, আপনার ব্লগ পড়ে খুবই মুগ্ধ।

এবং আমি এতটাই মুগ্ধ যে আমি আমার Roundup Post এ আপনাকে যুক্ত করতে চাই।

 

Roundup Post কি?

এটা হল আপনার বিষয়ের উপর বিশেষজ্ঞ বা প্রভাবকদের জিজ্ঞাসা করা ও মতামত নেওয়া। এই ক্ষেত্রে আপনি সবাইকে একই প্রশ্ন করবেন, এবং সবার উত্তর বা মতামত নেবেন। হতেও পারে সবার উত্তর বা মতামত একই, অথবা ভিন্ন ভিন্ন।

ধরা যাক আপনি SEO নিয়ে কাজ করেন আর আপনার প্রশ্ন টা হল- কিভাবে বিনা খরচে SEO করা যায়? তাহলে উপরে দেওয়া উদাহরনের মতই আপনি সমস্ত SEO বিশেষজ্ঞদের এই প্রশ্নটা করুন। যখন আপনি তাদের থেকে আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন, তখন সেই প্রশ্ন উত্তর সম্পর্কে একটি ব্লগ লিখুন।

আর হ্যাঁ, ঐ ব্লগ পোস্টের মধ্যে অবশ্যই তাদের ওয়েবসাইটগুলির লিংক(Backlinking) রাখুন। পারলে তাদের মুখের ছবি, ও তাদের অন্যান্য ছবি ঐ ব্লগে যুক্ত করে দিন। এবং শেষে তাদেরকে এই ব্লগের কথা জানিয়ে একটা ই-মেইল করুন, এবং তাদেরকে এই পোস্টটি শেয়ার করার জন্য বলুন। অবশ্যই তারা তাদের ফেইসবুক, টুইটার, লিঙ্কড ইন প্রোফাইলে এটি উৎসাহের সাথে শেয়ার করবে।

বেশি বেশি সোশাল শেয়ার পাওয়ার জন্য এটি একটি খুবই ভালো উপায়। যখন আপনি বেশি বেশি সোশাল শেয়ার পাবেন তখন বেশি বেশি ভিজিটর ও পাবেন। এবং তাদের মধ্যে কেও কেও আবার আপনাকে তাদের ব্লগে লিংক(Backlinking) করতে পারে। যখনই এটা ঘটবে তখনই আপনি আরও বেশি সোশাল শেয়ার পাবেন। আর এভাবেই আপনার র‍্যাঙ্ক বাড়তে থাকবে।

 

Keyword রিসার্চ

ফ্রি তে আপনার সাইটের SEO করার জন্য এর পর আপনি যেটা করবেন সেটা হল সার্চ ইঞ্জিন থেকে বেশি বেশি সার্চ ট্রাফিক পাওয়ার চেষ্টা। যার জন্য আপনাকে Google SEO Book keyword density নিয়ে কাজ করতে হবে। ইন্টারনেটে একটি ফ্রি ট্যুল আছে- http://tools.seobook.com। যেখানে আপনি আপনার প্রতিযোগী সাইটগুলির URL দিয়ে তারা কি কি কীওয়ার্ড এর জন্য র‍্যাঙ্ক করেছে সেগুলি জনাতে পারবেন।

আপনি যেই কীওয়ার্ডের জন্য র‍্যাঙ্ক করতে চাইছেন সেই কীওয়ার্ডের জন্য যেই সাইটগুলি সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় র‍্যাঙ্ক করেছে তাদের একটা তালিকা বানান। এই তালিকার ওয়েবসাইটগুলি কি কি Key phrase ব্যাবহার করেছে এবং তাদের ঘনত্ব কতটা সেসব জেনে নিন ঐ ফ্রি ট্যুলের লিঙ্কটি থেকে। এবার এই Key phrase গুলি যতটা পারা যায় আপনার সাইটে/ব্লগে ব্যাবহার করুন। যত বেশি নির্দিষ্ট Phrase ব্যাবহার করবেন তত বেশি ঐ Phrase টি গুগলকে ওই পেজটির সম্বন্ধে জানাতে সাহায্য করবে।

 

পুঙ্খানুপুঙ্খ হন

আমি আপনাকে বলছিনা যে আপনার সাইটকে হাজার হাজার Keyword দিয়ে ভরিয়ে দিন। আসলে এটাই বোঝাতে চাইছি যে যতটা পারবেন পুঙ্খানুপুঙ্খ হন। আপনার সাইটের প্রতিটি পাতা, প্রতিটি ব্লগ যত গভীর হবে যত পুঙ্খানুপুঙ্খ হবে গুগল ঐ পেজটিকে তত বেশি গুরুত্ব দেবে। ফলেই আপনার যদি Backlinks বেশি নাও থাকে তবুও শুধুমাত্র ভালো গভীর ও পুঙ্খানুপুঙ্খ সামগ্রী(Contents)-র জন্য আপনি গুগলে ভালো র‍্যাঙ্ক করতে পারেন। কারন গুগল তাদেরকেই র‍্যাঙ্ক করাতে চাই যারা তাদের বিষয় সম্পর্কে ইউজারদের সমস্ত রকম ও সব থেকে ভালো তথ্য প্রদান করে।

যদি আপনি সেই সমস্ত key phrase গুলি আপনার সাইটে ব্যাবহার করেন যেগুলির জন্য আপনার প্রতিযোগী সাইট সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় র‍্যাঙ্ক করেছে এবং যদি আপনার ওয়েবসাইট সামগ্রী(Website Contents) সত্যিই অন্য সবার থেকে বেশি পুঙ্খানুপুঙ্খ ও গভীর হয় তাহলে আপনি লক্ষ্য করতে পারবেন কিছু দিনের মধ্যেই আপনার র‍্যাঙ্ক আরও বেশি বেশি করে বাড়তে থাকবে।

 

Google Key Phrase

এখন শেষ ও সহজ যে টিপস টি আমি আপনাদের দেব সেটা হল Google Key Phrase যার জন্য আপনি organically র‍্যাঙ্ক করতে চান। ধরা যাক আপনার একটা হোটেল আছে এবং আপনি cheap Kolkata hotels – এই Key Phrase টির জন্য র‍্যাঙ্ক করতে চান। কিন্তু ব্যপার হল এটার জন্য আগে ভাগেই বহুজন সার্চ রেজাল্টস পেজের উপরের ৩০% ক্লিক পাওয়া অংশে বিজ্ঞাপন দিয়ে রেখেছে।

তাহলে এখন আপনি যেটা করবেন সেটা হল তাদের দেওয়া বিজ্ঞাপনগুলির টাইটেল গুলো ভালো করে দেখবেন। আর দেখবেন Google AdWords যেটা paid version. এর ভিত্তি হল যে প্রতি ক্লিকে যত বেশি টাকা দিতে পারবে এবং যার বিজ্ঞাপন যত বেশি আকর্ষণীয় হবে তার র‍্যাঙ্ক তত আগে থাকবে। টাইটেল যত বেশি আকর্ষণীয় হবে তত বেশি ক্লিক পাওয়া যাবে।

Organic Ranking এর ক্ষেত্রেও একই জিনিস ঘটে। এখানে আপনাকে কোনও রকম টাকা পয়সা খরচ করতে হবেনা। কিন্তু আপনি যত বেশি আকর্ষণীয় title tag ও meta description গুগলকে দেখাবেন বা ব্যাবহার করবেন, আপনি গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে ততই বেশি ক্লিক পাবেন। আর যত বেশি ক্লিক পাবেন তত বেশি আপনার র‍্যাঙ্ক বাড়তে থাকবে।

ধরুন আপনি গুগলে সার্চ করলেন- cheap Kolkata hotels. সার্চ করে উপরে দুটো বিজ্ঞাপন আর নীচে দশটা Organic রেজাল্টস পেলেন। এখন যদি গুগল লক্ষ্য করে যে সবাই উপরের বিজ্ঞাপনটি ছেড়ে নীচের বিজ্ঞাপনটিতে বেশি ক্লিক করছে তাহলে গুগল প্রতিটি ভিজিটরকে জানিয়ে দেবে যে বেশি সংখ্যক মানুষ নীচের লিংকটিকে পছন্দ করছে। কিন্তু Organic এর ক্ষেত্রে এমনটি হয়না। এক্ষেত্রে যার title tag ও meta tag যত আকর্ষণীয় হবে সে তত বেশি ক্লিক পাবে এবং তার তত বেশি র‍্যাঙ্ক বাড়বে।

 

আকর্ষণীয় শব্দের ব্যাবহার করুন

আপনার HTML কোডে গিয়ে title tag ও meta description কে এমন ভাবে সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলুন যাতে মানুষ উৎসাহের সাথে তাতে ক্লিক করে। Title কে আরও আকর্ষণীয় করতে title tag এর মধ্যে সাল ব্যাবহার করুন, এখন ২০১৮ ব্যাবহার করবেন, আবার এটাকে আপডেট করে ২০২০ করে দেবেন ২০২০ সালে। মানে প্রতি বছর সালটিকে আপডেট করে দেবেন। আর হ্যাঁ, now, fast, get, try, free ইত্যাদি শব্দগুলি title tag ও meta description এর মধ্যে যুক্ত করার চেস্টা করবেন। এই শব্দ গুলি মানুষকে বেশি আকৃষ্ট করে।

উপরে উল্লিখিত সমস্ত কাজগুলি করলে আপনি নিজেই খেয়াল করতে পারবেন যে আপনার সাইটের ট্রাফিক বা ভিজটর ক্রমশ বাড়তে থাকছে। এবং যেহেতু আপনি বেশি পরিমানে ক্লিক পাচ্ছেন, আপনার র‍্যাঙ্কিংও বাড়তে থাকবে এমনকি যদিও আপনি প্রতিযোগিতার বাজারে নতুন হন বা আপনি অন্যান্যদের মত অর্থ খরচ করতে অসামর্থ্য হন।

 

আশা করি বোঝাতে পেরেছি। কেমন লাগল নীচে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। আর যদি কোন সমস্যা থাকে তবে তা নীচে কমেন্ট করে জানাতে পিছপা হবেন না।

অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করুন। এবং আমাদের e-mail Newsletter এ সাবস্ক্রাইব করুন যাতে এই ধরনের সব গুরুত্বপূর্ণ পোস্টে আপনি চোখ রাখতে পারেন।

Categories: Blogger

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *